রাশিয়ার তৈরি বিশ্বের প্রথম করোনা ভ্যাকসিন নিয়ে যে বার্তা দিলেন ডব্লিউএইচও

প্রথম দেশ হিসেবে করোনাভাইরাস সংক্রমিত ‘কোভিড-১৯ প্রতিরোধে সক্ষম’ যে ভ্যাকসিনের অনুমোদন দিয়েছে রাশিয়া, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ওই ভ্যাকসিন নিয়ে মূল্যায়নের মতো পর্যাপ্ত তথ্য পায়নি। ডব্লিউএইচও’র আঞ্চলিক শাখা প্যান আমেরিকান হেলথ অর্গানাইজেশনের প্রধান এমন কথা জানিয়েছেন।বার্তা সংস্থা রয়টার্সের প্রতিবেদন অনুযায়ী ওয়াশিংটন থেকে ভার্চুয়াল

ব্রিফিংয়ে অংশ নিয়ে মঙ্গলবার প্যান আমেরিকান হেলথ অর্গানাইজেশনের প্রধান জারবাস বারবোসা বলেন, ‘রাশিয়া করোনার যে ভ্যাকসিনটির অনুমোদন দিয়েছে তার কার্যকারিতা মূল্যায়নের মতো পর্যাপ্ত তথ্য পায়নি বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা’।আজ মঙ্গলবার এক সরকারি বৈঠকে করোনা ভ্যাকসিন অনুমোদনের ঘোষণা দেন রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। তিনি বলেন,

‘মস্কোর গামালিয়া ইনস্টিটিউটের তৈরি এ ভ্যাকসিন রাশিয়ার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সবুজ সংকেত পেয়েছে। শিগগিরই ব্যাপকহারে এর উৎপাদন শুরু হবে।’সবার আগে রাশিয়ার ভ্যাকসিনের অনুমোদন নিয়ে সমালোচকরা বলছেন, রাজনৈতিক চাপের কারণে রুশ ভ্যাকসিন তৈরিতে গুরুত্বপূর্ণ অনেক ঝুঁকির বিষয় বাদ পড়েছে। রাশিয়াকে বিশ্বের বৈজ্ঞানিক গবেষণার কেন্দ্র হিসেবে উপস্থাপনে গবেষকদের ওপর দ্রুত ভ্যাকসিন তৈরির চাপ ছিল।

ব্রাজিলে করোনার সম্ভাব্য ভ্যাকসিন উৎপাদন নিয়ে জানতে চাওয়া হলে পিএএইচও প্রধান জারবাস বারবোসা বলেন, দ্বিতীয় ও তৃতীয় ধাপের ট্রায়ালে নিরাপদ ও কার্যকর হিসেবে প্রমাণিত না হওয়া যর্যন্ত ওই ভ্যাকসিনের উৎপাদনে যাওয়া উচিত হবে না।তিনি বলেন, ‘প্রত্যেক ভ্যাকসিন উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানকে এই কার্যপ্রণালী অনুসরণ করতে হবে যে তাদের তৈরি ভ্যাকসিন নিরাপদ এবং তারা বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার নির্দেশনা মেনে কাজ করছে’। প্রসঙ্গত রাশিয়া তড়িঘড়ি করে যথোপোযুক্ত পরীক্ষা ছাড়াই করোনার ভ্যাকসিনের অনুমোদন দিয়েছে বলে অভিযোগ আছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *