কেঁচো খুড়তেই বেরিয়ে এলো অজগর.. তদন্তে বেরিয়ে আসছে রোহিঙ্গা কোবরার নাম!

ঘটনার এই পর্যায়ে এসে জানা গেল যে, চলচ্চিত্রের খল ইলিয়াস কো’বরা জাতিগ’তভাবে বাংলাদেশি নন। তিনি মূলত রো’হিঙ্গা। মিয়ানমারের রাখাইন বা আরাকান রাজ্য থেকে এসে কক্সবাজারে নিবাস গড়েছিলেন।মিয়ানমারের সঙ্গে শ’ক্ত যোগসূত্রের সুবাদে দুই দেশের সঙ্গে ইয়া’বার যে সেতুবন্ধন গড়ে তুলেছেন, সেটিও এতকাল পরে জানা হলো! বলতে গেলে কো’বরা পরিবারের প্রায় সব পুরুষই ই’য়াবা কারবা’রে যুক্ত।

অনেকে জে’লও খে’টেছেন। ইয়া’বার মা’মলাও আছে।মেজর (অব.) সিনহা রাশেদ খানের নি’র্মম হ’ত্যাকা’ণ্ডের সঙ্গে এই ইলিয়াস কোবরার নাম চলে আসছে। গণমাধ্যমের খবরের সূত্রে এটি নিয়ে ত’দন্তও শুরু হয়েছে। অথচ এই ইলিয়াস কোবরা কি দা’পটের সঙ্গে চলচ্চিত্রে কাজ করার সুযোগ পেয়েছেন!

ওহ আরেকটি কথা, যার পুরো পরিবার ই’য়াবা তথা মা’দক কারবারের সঙ্গে যু’ক্ত, সেই ইলিয়াস কোবরাকে কক্সবাজারের ওই এলাকার মা’দক নি’র্মূল কমিটির সভাপতি বানিয়েছিলেন ওসি (প্রত্যা’হার) প্রদীপ কুমার!আরো পড়ুন: মৃ’ত্যু নিশ্চিত করতে পর পর দুটি গু’লি করেন ওসি প্রদীপঢাকা, ০৮ আগস্ট- মেজর সিনহার মৃ’ত্যু নিশ্চিত করতে পর পর দুটি গু’লি করেছেন টেকনাফ থা’নার সাবেক ওসি প্রদীপ কুমার দাশ।

এর আগে মেজর সিনহা মো. রাশেদকে গাড়ি থেকে নামিয়ে ৪ রাউন্ড গু’লি করে টেকনাফের বা’হারছড়া ফাঁ’ড়ির ইনচার্জ লিয়াকত।আহ’ত অবস্থায় সিনহা মাটিতে পড়ে থাকলে খবর পেয়ে ওসি প্রদীপ টেকনাফ থেকে এসে তার মৃ’ত্যু নিশ্চিত করতে আরো ২ রাউন্ড গু’লি করেন। বাহারছড়ার একজন প্রত্য’ক্ষদর্শী বেসরকারি টেলিভিশন একাত্তর টিভিকে এসব কথা বলেন।

সেই প্রত্য’ক্ষদর্শী বলেন, টেকনাফ থেকে ওসি প্রদীপ এসে মেজর সিনহার বুকে লা’থি দিয়ে ‘কু’ত্তার বা’চ্চা’ বলে পর পর দুটি গু’লি করেছেন। কিছুক্ষ’ণ পরে একটি গাড়ি এসে মেজর সিনহার ম’রদেহ তুলে নিয়ে যায়।এদিকে রাশেদ খানকে গু’লি করে হ’ত্যার পর ব’ন্দুকযু’দ্ধের গল্প সাজিয়ে দিয়েছিলেন কক্সবাজার জেলার পু’লিশ সুপার (এসপি) এ বি এম মাসুদ হোসেন।

আর টেকনাফ থা’নার তত্কালীন ওসি প্রদীপ কুমার দাশের নির্দেশেই সি’নহাকে গু’লি করেন তত্কালীন বাহারছড়া ত’দন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ পরিদর্শক লিয়াকত আলী। এসপি-ওসি-পরিদর্শকের ফোনালাপে এমন তথ্য উঠে এসেছে।এদিকে ময়নাতদ’ন্তে মেজর সিনহার শরীরে ৬ রাউন্ড গু’লি পাওয়া গেছে যদিও এজাহারে বলা হয়েছে ৪ রাউন্ড গু’লির কথা। প্রকৃতপক্ষে ময়নাতদ’ন্তে তার শরীরে ৬টি গু’লির চিহ্ন পাওয়া গেছে।তার মধ্যে এসআই লিয়াকত করেছেন ৪ রাউন্ড পরে মৃ’ত্যু নিশ্চিত করতে ওসি প্রদীপ করেছেন ২ রাউন্ড গু’লি। ফলে ময়’নাতদ’ন্ত রিপোর্টের সাথে মিলে যায় ৬ রাউন্ড গু’লি তার শরীরে পাওয়া গেছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *